Monday, June 24, 2024
Homeফিচারমাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণসহ ১১ দাবিতে শিক্ষকদের বিক্ষোভ

মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণসহ ১১ দাবিতে শিক্ষকদের বিক্ষোভ

শিক্ষা ক্ষেত্রে বিরাজমান সরকারি ও বেসরকারি বৈষম্য দূরীকরণে মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণসহ ১১ দফা দাবিতে মানববন্ধন এবং বিক্ষোভ মিছিল করেছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বিটিএ)। গতকাল বুধবার সারাদেশের জেলা সদরে এবং কেন্দ্রীয়ভাবে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা। মানববন্ধনে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শেখ কাওছার আহমেদের সঞ্চালনায় সংগঠনের সভাপতি অধ্যক্ষ বজলুর রহমান মিয়া, সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ আবুল কাশেম, সহ-সভাপতি আলী আসগর হাওলাদার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবু জামিল মো. সেলিম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল শেষে জেলা সদরগুলোতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে এবং কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে স্মারকলিপি পেশ করা হয়।

বিটিএর দাবিগুলো হচ্ছে- মুজিববর্ষেই মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ করা। ঈদের আগেই সরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের মতো পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা, বাড়ি ভাড়া ও চিকিৎসা ভাতা প্রদান। পূর্ণাঙ্গ পেনশন প্রথা চালু, পেনশন চালু না হওয়া পর্যন্ত অবসরগ্রহণের ৬ মাসের মধ্যে অবসর সুবিধা ও কল্যাণ ট্রাস্টের পাওনা প্রদান। শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন থেকে অতিরিক্ত ৪ শতাংশ কর্তন বন্ধ। স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তকরণ। সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধান শিক্ষকের বেতন স্কেল যথাক্রমে ৬ষ্ঠ ও ৭ম গ্রেডে উন্নীতকরণ। এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের বদলি প্রথা চালু। শিক্ষক-কর্মচারীদের চাকরির বয়সসীমা ৬৫ বছরে উন্নীতকরণ; পাবলিক সার্ভিস কমিশনের মতো শিক্ষক নিয়োগ কমিশন গঠন এবং শিক্ষা প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে আনুপাতিক হারে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের পদায়ন। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের আর্থিক প্রণোদনা এবং শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে শিক্ষা সহায়ক ডিভাইস প্রদান। ম্যানেজিং কমিটি/গভর্নিং বডির সদস্যদের ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ; জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-এর দ্রুত বাস্তবায়ন।

এদিকে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের জন্য পরিচালিত স্কুলগুলোর স্বীকৃতি ও এমপিওভুক্তির দাবি জানিয়েছেন এসব স্কুলের শিক্ষকরা। এ দাবি নিয়ে রাজধানীর শাহবাগে গত কদিন ধরে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। সংগঠনের আহ্বায়ক আরিফুর রহমান অপু গতকাল আমাদের সময়কে বলেন, প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়গুলোর স্বীকৃতি ও এমপিওভুক্তির এক দফা দাবি আমাদের মূল দাবি। এর সঙ্গে আরও কিছু সম্পৃক্ত আছে। সবার আগে আমরা এমপিওভুক্তি চাই। দীর্ঘদিন আন্দোলন করছি, আমরা কোনো আশ^াস চাই না- দাবির বাস্তবায়ন চাই।

ধর্মঘট অব্যাহত এবতেদায়ি শিক্ষকদের স্বতন্ত্র এবতেদায়ি মাদ্রাসা জাতীয়করণ, রেজিস্ট্রেশন পাওয়া মাদ্রাসাগুলো শিক্ষা বোর্ডে অন্তর্ভুক্ত করাসহ ৮ দফা দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গতকাল তৃতীয় দিনের মতো অবস্থান ধর্মঘট করেছে স্বতন্ত্র এবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক ঐক্যজোট। এ সময় এক সভায় বক্তব্য দেন ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান কাজী মোখলেছুর রহমান। আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সমন্বয়ক কাজী ফয়েজুর রহমান, সংগঠনের মুখপাত্র এসএম জয়নুল আবেদীন জেহাদী, সদস্য সচিব মো. তাজুল ইসলাম ফরাজী প্রমুখ।

এবতেদায়ি শিক্ষকদের দাবিগুলো হলো- স্বতন্ত্র এবতেদায়ি মাদ্রাসা নীতিমালা ২০১৮ বাস্তবায়ন, মাদ্রাসায় পাঠদানের অনুমতির স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার, রেজিস্ট্রেশন পাওয়া মাদ্রাসাগুলোকে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অন্তর্ভুক্তিকরণ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মতো মাদ্রাসাগুলোতেও উপবৃত্তির ব্যবস্থা করা, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো এখানেও একজন অফিস সহায়কের পদ সৃষ্টি, পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষার অটোপাসের প্রজ্ঞাপন জারি এবং স্বতন্ত্র এবতেদায়ি মাদ্রাসার ডেটাবেজ চূড়ান্ত করা।

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular